1. admin@dailygomutipratidin.com : admin :
শুক্রবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৯:১৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
কুমিল্লায় মাদক ও ভেজাল খাদ্য পরিবেশনের নির্মুলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সোহেল রানা সরকারি প্রশাসনের গর্ব চট্টগ্রামে মাদক ব্যবসায় নিয়োজিত করার জন্য অপহরণ: অপহৃত ভিকটিম উদ্ধার করেছে র‌্যাব-৭। বাকলিয়া থানার উদ্যেগে ওপেন হাউস ডে পালিত ২৮ অক্টোবর সদর ইউপিতে মেডিকেল ক্যাম্প করবে বুড়িচং উপজেলা সমিতি গোমস্তাপুরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৬তম জন্মদিন পালিত। চট্টগ্রামে স্ত্রী দুই মহিলা মাদক ব্যবসায়ী ৩৭৫২ পিস ইয়াবা ট্যাবলেটসহ গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৭, চট্টগ্রামে মাদকদ্রব্য সহ মাদক কারবারি গ্রেফতার করেছের‌্যাব-৭, কুমিল্লায় ব্যাংকসহ ৯ দোকানে ভয়াবহ অগ্নিকান্ড;ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ ২০ লক্ষাধিক টাকা সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠীর ঠিকানা বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশে হবে না।—বাবর। চট্টগ্রামের চন্দনাইশে অভিযান চালিয়ে মাদক সহ মাদক সহ কারবারি গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৭

বাঁশখালীতে নৌকার সমর্থকদের ওপর হামলার ঘটনায় ৪৮ জনের বিরুদ্ধে মামলা।

  • আপডেট সময় : বুধবার, ২২ জুন, ২০২২
  • ১১৯ বার পঠিত

চট্টগ্রাম জেলা প্রতিনিধি :

বাঁশখালী (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি: বাঁশখালীর ছনুয়া ইউনিয়নের আবদুল্লাহর দোকান এলাকায় নির্বাচনে নৌকার পক্ষে কাজ করায় পল্লী চিকিৎসকের চেম্বারে হামলা ও লুটপাটের ঘটনায় মামলা হয়েছে। গত ১৫ জুন ইউপি নির্বাচনের পরের দিন ঘটনাটি ঘটলেও মামলা হয়েছে ৪দিন পর। আদালত মামলাটি অধিকতর তদন্তের জন্য বাঁশখালী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. কামাল উদ্দিনকে নির্দেশ দিয়েছেন। যার মামলা নং-৭১২।

সোমবার (২০ জুন) বাঁশখালী জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ছনুয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এম হারুনুর রশীদকে প্রধান আসামি করে ৪৮ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরও ১০০ থেকে ১৫০ জনের বিরুদ্ধে মামলাটি দায়ের করেন ভুক্তভোগী পল্লী চিকিৎসক রহিমা বেগমের স্বামী মো. সাগর। তবে বিষয়টি জানাজানি হয় আজ মঙ্গলবার।

মামলায় অভিযুক্তরা হলেন- ছনুয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও ছনুয়া ৭নম্বর ওয়ার্ডের সালাম বলীর বাড়ির মোস্তাক আহমদের পুত্র এম হারুনুর রশীদ (৫৫), তার সহোদর আলমগীর কবির (৪৫), খোরশেদ আলম (৪৬), আবদুল আজিজ টিপু (৩২), এম. হারুনুর রশীদের পুত্র মো. শরীফ (২৩), একই এলাকার মৃত বশির আহমদের পুত্র হেফাজতুল ইসলাম (৪০), র‌্যাবের সাথে বন্দুকযুদ্ধে নিহত বাহাদুর ইসলাম প্রকাশ বাহাদুর ডাকাতের পুত্র এমদাদুল ইসলাম (২৫), মৃত কালু সওদাগরের পুত্র ইউসুফ মাঝি (৫০), নুরুল আমিনের পুত্র মিজানুর রহমান (২৮), ছনুয়া ৬নম্বর ওয়ার্ডের মৃত আবুল হোসেনের পুত্র নুরুল কাদের ডাকাত (৫৫), ৭নম্বর ওয়ার্ডের আবদুল খালেকের পুত্র মো. ছরওয়ার আলম (৩০), ৮নম্বর ওয়ার্ডের গোলাম রহমানের পুত্র নাজিম উদ্দীন ডাকাত (৪০), একই এলাকার মৃত নুরুল কাদেরের পুত্র আবদুল হামিদ (২৪), শেখেরখীল ৪নম্বর ওয়ার্ডের মোস্তাক আহমদের পুত্র নুরুল ইসলাম বাদশা (২৮), ছনুয়া ৮নম্বর ওয়ার্ডের মৃত সাজেদ উল্লাহর পুত্র আশেকুর রহমান (৩২), ছনুয়া ৬নম্বর ওয়ার্ডের কাতেবপাড়ার নুরুচ্ছফার পুত্র তোফায়েল আহমেদ (৩৫), ৭নম্বর ওয়ার্ডের নুরুল আলমের পুত্র মো. তৈয়ব (২৩), মৃত শামসুল আলমের পুত্র রাশেদুল মনির (৩৫), মৃত আবদুল খালেকের পুত্র ছৈয়দুল মোস্তফা প্রকাশ (৪৫), হেদায়েত আলীর পুত্র আবদুল হাকিম (৫০), আহমদ আলীর পুত্র আবু সিদ্দিক (৩০), ছনুয়া ৬নম্বর ওয়ার্ডের মৃত ছালেহ আহমদের পুত্র আবুল খায়ের (৩৮), ৮নম্বর ওয়ার্ডের মৃত বশির আহমদের পুত্র এহসানুল করিম (৩৫), মফিজুল করিম (৪৫), ৮নম্বর ওয়ার্ডের মো. ইউনুছের পুত্র জাহেদ সোহান (২৫), ৭নম্বর ওয়ার্ডের মোস্তাক আহমদের পুত্র সিএনজি চালক মফিজ (৩০), সিরাজ মিস্ত্রির পুত্র সিএনজি চালক মুজিব (৩৫), ছনুয়া ৮নম্বর ওয়ার্ডের নুর মোহাম্মদের পুত্র দেলোয়ার হোসেন ওরফে লম্বা মিয়া (৩৬), মৃত কালা মিয়ার পুত্র নুরুল হক (৪০), আবদুল মালেক প্রকাশ বান্ডার পুত্র মো. আজিজ (৩০), মো. রিটন (২৮), নুরুচ্ছফার পুত্র আবদুর রহমান (২৬), মৃত বদিউল আলমের পুত্র শাহাদাত আলম (৩২), ছনুয়া ৭নম্বর ওয়ার্ডের মৃত সাজেদ উল্লাহ ওরফে সাজুর পুত্র মোশাররফ হোসাইন

মো. ইয়াসিন (৩১), মৃত খলিল আহমেদের পুত্র মোক্তার আহমদ (৫০), ছনুয়া ৭নম্বর ওয়ার্ডের মনজুর আলম (৩৫), মৃত আবদুল জব্বারের পুত্র মো. ইসমাইল (৫৫), ছনুয়া ৯নম্বর ওয়ার্ডের মৃত ছাবের আহমদের পুত্র মো. মহিউদ্দিন (৪৫), ৮নম্বর ওয়ার্ডের হাবিবুর রহমানের পুত্র গোলাম মোস্তফা ওরফে বাইশ্যা (৫২), মীর আহমদের পুত্র হোসাইন (৪৭), আবুল খায়েরের পুত্র মো. ইলিয়াস (৩৫), ৮নম্বর ওয়ার্ডের মৃত নুর মোহাম্মদের পুত্র জাকের হোসেন (৩০), আমির হোসাইন (৩৮), ৯নম্বর ওয়ার্ডের মনজুর আহমদের পুত্র আবদুল মোমেন প্রকাশ মিয়া (৩০), মৃত নজির আহমেদের পুত্র মো. কালু (৪৭) সহ আরো অজ্ঞাত ১০০ থেকে ১৫০ জন।

মামলার অভিযোগে বাদী মো. সাগর উল্লেখ করেন, মামলার বাদী মো. সাগরের পুরো পরিবার রাজনৈতিকভাবে আওয়ামী লীগের সাথে জড়িত। সেই সুবাদে গত ১৫ জুন ইউপি নির্বাচনে ছনুয়া ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মুজিবুর রহমান তালুকদারের পক্ষে কাজ করেন। এতে নৌকার বিদ্রোহী প্রার্থী এম হারুনুর রশীদ সাগরের প্রতি ক্ষিপ্ত হন। গত ১৬ জুন আনুমানিক বেলা ১১টায় উল্লেখিত আসামিগণ সহ আরো অজ্ঞাত ১০০ থেকে ১৫০ জন সন্ত্রাসী অস্ত্র, লোহার রড, দা, কিরিচ ও বিভিন্ন দেশীয় অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে আবদুল্লাহর দোকান এলাকার রহিমা বেগমের চেম্বারে হামলা করে। এসময় মামলার ১নম্বর আসামি এম. হারুনুর রশীদ ঘটনাস্থলে দাঁড়িয়ে অন্যান্য আসামিদের নির্দেশ দেন যে, ২নম্বর আসামি আলমগীর কবির ভুক্তভোগী হামিদকে ধারালো কিরিস দ্বারা মাথায় আঘাত করে ও বাদীর স্ত্রী রহিমা বেগমকে শ্লীলতাহানি করে এবং হাতে থাকা রড দিয়ে কোমরে পিঠে, উভয় হাতে বেধড়ক মারধর করে আহত করেন। ৩ ও ৪নম্বর আসামি রহিমা বেগমের গলায় থাকা ৭০ হাজার টাকা মূল্যের এক ভরি স্বর্ন সহ অনেক ক্ষয় ক্ষতি সম্মুখিন হন ডাক্তার সাগর।

মামলা হয়েছে বলে নব নির্বাচিত চেয়ারম্যান ও তার পরিবার  সহ  চট্টগ্রাম বিভাগীয় শহরে গা ডাকাদিয়েছেন বলে সাগর সাংবাদিকদের বলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরও খবর
© All rights reserved © 2022 Daily Gomuti Pratidin
Theme Customized By Theme Park BD
error: Content is protected !!